কুমিল্লায় এক মাসে ১৬ খুন, অপরাধ ৫০৫টি

ঢাকা, সোমবার, ২৭ মে ২০১৯ | ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

কুমিল্লায় এক মাসে ১৬ খুন, অপরাধ ৫০৫টি

কুমিল্লা প্রতিনিধি ৭:১০ অপরাহ্ণ, জুন ২৭, ২০১৬

কুমিল্লায় এক মাসে ১৬ খুন, অপরাধ ৫০৫টি

কুমিল্লায় গত মে মাসে ১৬টি খুন ৪৩টি নারী ও শিশু নির্যাতন, ৬০ টি অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার, ৩টি দস্যুতা, ১৭৫টি মাদকের চোরাচালান আটকসহ ৫০৫টি অপরাধ সংঘটিত হয়েছে বলে জানিয়েছেন কুমিল্লা জেলা প্রশাসক।

সোমবার জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে জেলা মাসিক আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. গোলামুর রহমান জানান এ তথ্য জানান। প্রকাশিত পরিসংখ্যানে দেখা যায় চলতি বছরে বিভিন্ন গুরুতর অপরাধসহ খুন, নারী ও শিশু ধর্ষণ ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেয়েছে।

সভায় মো. গোলামুর রহমান জানান, কুমিল্লা জেলার ১৬টি উপজেলার ১৭টি থানার মধ্যে মে মাসে কুমিল্লা কোতয়ালী উপজেলায় একটি খুন, নারী ও শিশু নির্যাতন নয়টি, দস্যুতা দুইটি, সিঁধেল চুরি একটি, মাদক ৪৬টিসহ মোট ৮৮টি অপরাধ সংঘটিত হয়েছে।

এছাড়া জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলায় খুন একটি,  নারী ও শিশু নির্যাতন ছয়টি, মাদকদ্রব্য ২৭ সহ মোট ৫৩টি অপরাধ করা হয়েছে। চৌদ্দগ্রামে একটি চুরি, অস্ত্র আটক একটি, মাদক সাতটিসহ মোট ২০টি, নাঙ্গলকোট নারী ও শিশু নির্যাতন, মাদক, অস্ত্র আইনে একটিসহ মোট ১৩টি অপরাধ করা হয়।

লাকসামে একটি খুন ও মাদক ৬টিসহ অপরাধ করা হয় ১৫টি।

মনোহরগঞ্জে খুন একটি, নারী ও শিশু নির্যাতন এবং মাদক দুইটিসহ মোট ৯টি অপরাধ ঘটে।

বুড়িচংয়ে দুইটি খুন, নারী ও শিশু নির্যাতন পাঁচটি, একটি চুরি ও মাদক ১১টিসহ মোট ৪৬টি অপরাধ, বাহ্মণপাড়ায় খুন দুইটি, নারী ও শিশু নির্যাতন তিনটি, মাদক ১০টিসহ মোট ২০টি অপরাধ করা হয়েছে।

বরুড়ায় নারী ও শিশু নির্যাতন তিনটি ও মাদক পাঁচটিসহ মোট ২৬টি অপরাধ, চান্দিনায় দুইটি নারী ও শিশু নির্যাতন ও মাদক পাঁচটিসহ মোট ৩১টি অপরাধ, দাউদকান্দিতে দস্যুতা ও খুন একটি, দুইটি নারী ও শিশু নির্যাতন, একটি অস্ত্র আইন ও মাদক ২৭টিসহ মোট ৫১টি অপরাধ করা হয়। তিতাসে খুন, নারী ও শিশু নির্যাতন ও অস্ত্র আইন একটি এবং মাদক ৫টিসহ মোট ৩৩টি অপরাধ, মেঘনায় একটি মাদক ও খুনসহ মোট ১৩টি অপরাধ ঘটানো হয়। হোমনায় খুন ও  মাদক একটিসহ মোট ১৯টি অপরাধ, মুরাদনগর খুন, নারী ও শিশু নির্যাতন দুইটি, মাদক ৬টিসহ মোট ১৮টি অপরাধ, দেবিদ্বারে খুন দুইটি, তিনটি নারী ও শিশু নির্যাতন, একটি চুরি ও মাদক ৬টিসহ মোট ২৮টি অপরাধ, বাঙ্গরা থানা আওতাধীন একটি ডাকাতি, একটি খুন, ৪টি নারী ও শিশু নির্যাতন, দুইটি চুরি ও মাদক ৬টিসহ মোট ২২টি অপরাধ সংঘটিত করা হয়।

এই জেলায় দিন দিন অপরাধের হার বৃদ্ধি পাওয়ার কথা স্বীকার করে জেলা পুলিশ সুপার শাহ মো. আবিদ হোসেন বলেন, ১৭টি উপজেলায় অপরাধ প্রবণতা  ধীরে ধীরে আমাদের নিয়ন্ত্রণের মধ্যে নিয়ে আসা হচ্ছে। তবে চলতি বছরের মার্চ মাস থেকে অপরাধ প্রবণতা বৃদ্ধি পেয়ে যাচ্ছে। তবে বড় ধরনের কোনো অপরাধের ঘটনা ঘটেনি। এধরনের গুরুতর অপরাধগুলো দমন করতে হলে প্রশাসনকে এগিয়ে এসে পুলিশকে সাহায্য করতে হবে। সবার সাহায্যে জেলার যে কোনো অপরাধ নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ প্রশাসন প্রস্তুত আছে এবং কাজ করে যাচ্ছে। 

কমিটির সভায় জেলা প্রশাসক হাসানুজ্জামান কল্লোলের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার মো. শাহ আবির হোসেন, জেলা পরিষদের প্রশাসক আলহাজ ওমর ফারুক, জেলা হাইওয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এনামুল হক প্রমুখ।

এমএ/এসআই/এসজে